• ‘বুড়ি’ বলায় রেগে গেলেন জয়া!

    উইকিপিডিয়া বলছে, অভিনেত্রী জয়া আহসানের বয়স নাকি ৪৬ বছর। একথা শুনে কি চমকে গেলেন? ঠিক একইভাবেই আমার, আপনার মতোই বিষয়টা জেনে চমকে গিয়েছিলেন জয়াও। তবে সমস্যাটা নতুন নয়, বেশ কয়েক বছর আগের। বেশ কয়েক বছর আগে থেকেই জয়ার বয়স সম্পর্কে ভুল তথ্যই দিয়ে এসেছে উইকিপিডিয়া। এর পিছনে বেশকিছুই সিনিয়ার অভিনেত্রীও রয়েছেন বলে দাবি অভিনেত্রী।

    তার আরও অভিযোগ, শুধু বয়সই নয়, তার বাড়ির ঠিকানা, তার ভাই-বোন সবকিছু সম্পর্কেই ভুল তথ্য রটানো হচ্ছে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অভিনেত্রী জয়া। একটু মজা করেই বলেছেন ৪৬ বছর আগে আমার বাবা-মা বিয়ে কেন দেখাও হয়নি।

    সোশ্যাল সাইটে লম্বা পোস্টে জয়া নিজের ফেসবুক পোস্টে ক্ষোভ উগরে দিয়ে লিখেছেন, তবে ইদানিং ২/১ টি বিষয় আমাকে কিছুটা ভাবিয়ে তুলেছে। বিশেষ করে ইদানিং বেশ কয়েকজন বিভিন্ন পত্রপত্রিকা/ উইকিপিডিয়ার তথ্যসূত্র টেনে আমার বয়স নিয়েও বেশ চর্চা করছেন। বলা হচ্ছে, আমার বয়স নাকি ৪৬ ! গুজব-গুঞ্জন আমি বরাবরই খাবারের লবনের মত উপভোগ করে গিয়েছি। দু-একজন সমবয়সী কিংবা আমার চেয়ে বয়সে বড় শ্রদ্ধাভাজন সহকর্মী (বিশেষ করে বেশ কয়েকজন অভিনেত্রী) গণমাধ্যমে নিজেদের অধিকার মনে করে আমার বয়স (ভুল তথ্য) নিয়ে চর্চা করেছে-বিষয়টি মজার। তাই এতদিন উপভোগ করেই গিয়েছি। তবে খুব সম্ভবত আমার চুপ থাকাটাকে অনেকে ‘মৌনতা সম্মতির লক্ষণ’ হিসেবে ধরে নিয়েছেন। নিন্দুকেরাও ‘অস্ত্র’ হিসেবে আমার বয়সের ভুল তথ্য প্রচার করে আনন্দ পাচ্ছেন। জয়ার অবশ্য সাফ বক্তব্য বয়স নয়, একজন শিল্পীর পরিচয় হওয়া উচিত তার কাজে। সূত্র: জি নিউজ।

    Comments

    comments

    No Comments

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    9 + 2 =