• কাতালোনিয়াকে স্বীকৃতি দেবে না ব্রিটেন -আমেরিকা

    ইউরোপের বড় বড় কোনো শক্তিই কাতালোনিয়ার স্বাধীনতাকে স্বীকৃতি দেবে না বলে জানিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রও কাতালোনিয়ার স্বাধীনতাকে স্বীকৃতি দেবে না বল জানানো হয়েছে। খবর বিবিসি, সিএনএনের।

    স্পেনের সার্বভৌমত্বের প্রতি একাত্মতা প্রকাশ করেছে জার্মানি। অন্যদিকে স্পেনের প্রধানমন্ত্রী মারিয়ানো রাজয়ের কাজের প্রতি সমর্থন জানিয়েছে ফ্রান্স। সমর্থন জানিয়েছে বেলজিয়াম, কানাডা এবং তুরস্কও।

    ব্রিটেন বলেছে, স্পেনের অখণ্ডতা অটুট থাকুক এবং তাদের সংবিধান সমুন্নত থাকুক এটিই তাদের প্রত্যাশা। দেশটির সরকারের একজন মুখপাত্র বলেন, যে গণভোটের উপর ভিত্তি করে কাতালোনিয়া স্বাধীনতা ঘোষণা করেছে সে গণভোট অবৈধ।
    মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, কাতালোনিয়া স্পেনের অখণ্ড অংশ।

    এদিকে স্পেনের প্রধানমন্ত্রী মারিয়ানো রাজয় শুক্রবার কাতালানের পার্লামেন্ট ভেঙ্গে দিয়েছেন। কাতালানের কর্তৃপক্ষ স্বাধীনতা ঘোষণার কয়েক ঘণ্টা পর স্প্যানিশ প্রধানমন্ত্রী এই ঘোষণা দেন।

    প্রধানমন্ত্রী রাজয় বলেছেন, কাতালোনিয়ায় ‘স্বাভাবিকতা ফিরিয়ে আনতে’ সেখানে সরাসরি শাসন জারি প্রয়োজনীয়তা ছিল। তিনি এসময় কাতালানের প্রেসিডেন্ট কার্লোস পুজেমন এবং তার মন্ত্রিসভাকে বরখাস্ত করেছে। বরখাস্ত করা হয়েছে কাতালানের পুলিশ প্রধানকেও।

    শুক্রবার স্পেনের সিনেট রাজয় সরকারকে কাতালোনিয়ায় সরাসরি শাসন জারির অনুমতি দেয়। প্রধানমন্ত্রী রাজয় বলেন, প্রেসিডেন্ট পুজেমনের আইনের শাসন মেনে নেওয়া এবং আঞ্চলিক নির্বাচনে অংশগ্রহণের সুযোগ ছিল। কিন্তু তিনি কাতালোনিয়ার সংখ্যাগরিষ্ঠের মতকে উপেক্ষা করেছেন। তাই বৈধতা ফিরিয়ে আনতে স্পেনের সরকার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়েছে।

    উল্লেখ্য, স্পেনে আগামী ২১ ডিসেম্বর আঞ্চলিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এর আগে কেন্দ্রীয় সরকারের বাধা উপেক্ষা করে ১ অক্টোবর গণভোটের আয়োজন করা হয় কাতালোনিয়ায়। এতে ৯০ শতাংশ ভোটার কাতালোনিয়ার স্বাধীনতার পক্ষে রায় দেন।

    Comments

    comments

    No Comments

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    7 + 16 =